Ecommerce VS Marketplace - নিজস্ব ওয়েবসাইট বা বিক্রয় প্ল্যাটফর্ম কোনটা ভাল কোনটি আপনার ব্যবসার জন্য

Ecommerce VS Marketplace - নিজস্ব ওয়েবসাইট বা বিক্রয় প্ল্যাটফর্ম কোনটা ভাল কোনটি আপনার ব্যবসার জন্য

বিশ্বব্যাপী আনুমানিক 1.8 বিলিয়ন মানুষ অনলাইনে পণ্য ক্রয় করে,63% ক্রেতারা তাদের কেনাকাটা যাত্রা অনলাইনে শুরু করেছেন। অনলাইনে বিক্রি করা অত্যন্ত লাভজনক হতে পারে কিন্তু কেবল তখনই যখন আপনি জানেন কোথায় এবং কিভাবে বিক্রি করবেন। Sales giants যেমন Amazon, eBay, evaly, daraz এবং AliExpress অনলাইন মার্কেটপ্লেস থেকে লাভ করে, যদিও Apple, Nike, এবং Dior   আয় এর জন্য ((to drive channel revenue and scale) একটি ব্যক্তিগতকৃত ইকমার্স ওয়েবসাইট ব্যবহার করে। Amazon ২০২০ সালে তার প্রথম আর্থিক ত্রৈমাসিকে .5৫.৫ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে। একই সময়ের মধ্যে, অ্যাপলও $ 63 থেকে 67 বিলিয়ন ডলার উপার্জন করেছে ।

একটি ই -কমার্স ওয়েবসাইট VS একটি মার্কেটপ্লেস হল অনেক বিক্রেতার মুখোমুখি হওয়ার দ্বিধা (The dilemma facing many vendors) । যদি আপনি এখনও সিদ্ধান্ত নিতে না পারেন যে কোন বিকল্পটি আপনার ব্যবসায়িক ধারণার/ব্যবসার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত? এই নিবন্ধের শেষে, আপনি প্রতিটি বিকল্পের নির্দিষ্টতা (Specificity of each option) এবং একটি মার্কেটপ্লেস এবং একটি ইকমার্স ওয়েবসাইটের মধ্যে মৌলিক পার্থক্য জানতে পারবেন।

একটি Ecommerce Marketplace কি?

একটি Online Marketplace এমন একটি প্ল্যাটফর্ম, যা বিভিন্ন বিক্রেতা (Vendors) এবং ক্রেতাদের (Buyer) এক জায়গায় জড়ো করে। যারা অনলাইনে পণ্য বিক্রি করতে ইচ্ছুক তাদের জন্য এটি উন্মুক্ত। Marketplace গুলির প্রধান সুবিধা হল একটি বিশাল Vast Audience, পণ্যগুলির একটি বিশাল পছন্দ (Immense choice of goods) এবং সেই পণ্যগুলি দ্রুত অ্যাক্সেস সুবিধা (Quick access to them) দ্বারা আকৃষ্ট। যেহেতু গ্রাহকরা ইচ্ছায় মার্কেটপ্লেসে আসে, একজন বিক্রেতার একমাত্র কাজ হল তাদের পণ্য (Product) বা পরিষেবার (Services) তথ্য প্রদান করা। মার্কেটপ্লেসগুলি Admin দ্বারা পরিচালিত হয় যা ক্রেতা এবং বিক্রেতাদের মধ্যে তৃতীয় পক্ষ হিসাবে কাজ করে।

এখানে তিনটি পক্ষ জড়িত - Vendor, Customer, এবং Marketplace administrator

Ecommerce Website কি?

একটি Marketplace এর বিপরীতে, একটি Ecommerce Website এর একজন ব্যবসার মালিক রয়েছে, যা কাস্টম ফিচার সম্বলিত একটি ওয়েবসাইটে তার ব্র্যান্ড প্রচার করতে চায়। Ecommerce একটি ওয়েবসাইট যেখানে, একক বিক্রেতা তার পণ্য/সেবা একাধিক গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করে। যেহেতু ওয়েবসাইটটি বিক্রেতার , তাই বিক্রয় প্রক্রিয়ায় শুধুমাত্র "বিক্রেতা এবং ক্রেতা" দুটি পক্ষ জড়িত ।

অনলাইনে বিক্রির এই দুটি উপায় তরুণ উদ্যোক্তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পছন্দের যারা শুধুমাত্র ই -কমার্সে তাদের এভিনিউ শুরু করে।

একটি Marketplace এবং একটি Ecommerce Website এর মধ্যে মূল পার্থক্য:

 

একটি Online Marketplace এ বিক্রির সুবিধা:

High Traffic:

একটি Marketplace আপনাকে অসংখ্য সম্ভাব্য/Potential Customer এর সাথে সংযুক্ত করে, আপনাকে বিজ্ঞাপন এবং বিপণন পর্যায়গুলি Bypass করার সুবিধা দেয়। একবার আপনি একটি মার্কেটপ্লেসের সদস্য হয়ে গেলে, আপনি বিপুল সংখ্যক Potentially interested Customer এর অ্যাক্সেস পান, যার ফলে আপনি প্রথম দিন থেকে লাভ করতে পারেন।

যেখানে ওয়েবসাইট স্টোর মালিককে ((Ecommerce Website Owner) ওয়েবসাইটে ট্রাফিক আকর্ষণ করতে হয়।

Customer Trust:

ব্যবসার জন্য একটি মার্কেটপ্লেস ব্যবহার, Unknown Brand গুলির জন্য একটি যুক্তিসঙ্গত সমাধান, যা শুধুমাত্র তাদের নাম তৈরি করা শুরু করে। একটি মার্কেটপ্লেস, সম্ভাবনার চোখে (In the eyes of prospects) সম্মানজনক মনে হতে পারে, যেমন দারাজের ক্ষেত্রে, যেখানে বাংলাদেশি ক্রেতারা যখন কোন পণ্য প্রয়োজন হয়, তখন প্রথম যেতে পছন্দ করে।

Effective logistics:

আপনার ব্যবসা একটি বড় Supply chain network এ যোগ দেয়, যা আপনার ক্রেতাদের ডেলিভারি পরিচালনা করে (Manages delivery to your buyers)।এটি অত্যন্ত সুবিধাজনক কারণ আপনি Shipping এবং Inventory সংক্রান্ত সমস্যাগুলি থেকে মুক্ত থাকতে পারেন। Quick time-to-launch: আপনার ব্যবসাকে মার্কেটপ্লেসের সাথে Integrate করতে খুব বেশি সময় লাগে না। আপনার Effort শুধুমাত্র বিক্রয়ের জন্য, আপনার পণ্য/Goods বা Services গুলি প্রদর্শনের (showcas) জন্য প্রচেষ্টা করা, যা সাধারণত এক সপ্তাহ পর্যন্ত সময় নেয়। No need for maintenance: কোম্পানি updates, security, এবং bugs এবং এর যত্ন নেয়, তাই আপনাকে web development service এর জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে না। আপনি secure payment method থেকেও লাভবান হন যা Marketplace Owner দ্বার প্রদান করা হয়।

Low investment:

একটি Marketplace এ বিক্রি করা individual website এর তুলনায় কম খরচের ব্যাপার। একটি WEbsite তৈরি এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ খরচ প্রয়োজন। এমনকি যখন আপনি একটি Ecommerce প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেন, যা Online Store তৈরি এবং পরিচালনার অনুমতি দেয়, তখনও সামান্য খরচ হয়। যাইহোক, একটি Marketplace ব্যবহার করার সময় এটি প্রয়োজন হয় না। পুরো Infrastructure  এবং IT support মার্কেটপ্লেস দ্বারা যত্ন নেওয়া হয়।

Marketplace takes care of SEO:

যেহেতু মার্কেটপ্লেসগুলি ব্যবসায়ের মধ্যে রয়েছে, তাদের product category pages এর জন্য তাদের একটি Well established SEO এবং SERP খ্যাতি রয়েছে। যখন আপনার পণ্যগুলির জন্য আরও Traffic/Eyeballs সংগ্রহ করার কথা আসে, তারা  Individual website এর উপর স্কোর করে। এই জন্য, আপনি বলতে পারেন যে একজন বিক্রেতা হিসাবে আপনাকে Traffic বা eyeballs তৈরিতে সম্পদ পোড়ানোর দরকার নেই।

Policy pages aren’t your headache:

প্রতিষ্ঠিত মার্কেটপ্লেসে ইতিমধ্যেই শিপিং থেকে শুরু করে অর্ডার পূরণ বা বাতিল করা পর্যন্ত সবকিছুর জন্য একটি স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত Policy আছে। মার্কেটপ্লেসগুলি কেনাকাটার লেনদেনের পাশাপাশি অভিজ্ঞতাকে সহজ করে, সুতরাং, আপনার জন্য সেখানে ব্যবসা শুরু করা অনেক সহজ করে তোলে।

Play on the reliability of your marketplace:

যে কোনও বিশিষ্ট Prominent marketplace এর একটি বিশাল Customer Base রয়েছে যার কারণে লোকেরা এখানে কেনাকাটা করে। একটি Reputed site এর ট্রাফিক আছে,যেমন, Amazon, Daraz, Alliexpress। এমনকি যদি কেউ আপনাকে না চেনে, তাহলেও ঠিক আছে। গ্রাহকরা এখনও আপনার পণ্যগুলি কিনবে কারণ তারা Marketplace’s Reputation নিয়ে Concerned।

 

একটি Online Marketplace এ বিক্রির অসুবিধা:

High level of competition: এমন একটি মার্কেটপ্লেসে দাঁড়িয়ে থাকা কঠিন যা শত শত বিক্রেতাদের Similar পণ্য এবং Service বিক্রি করার চেষ্টা করে। এছাড়া, যদি আপনি একটি অত্যন্ত "Competitive Niche'' নিয়ে কাজ করেন , Marketplace এ আপনার অবস্থান ক্রমশ অস্থির/Unstable হয়ে উঠবে। High level of competition: এমন একটি মার্কেটপ্লেসে দাঁড়িয়ে থাকা কঠিন যা শত শত বিক্রেতাদের Similar পণ্য এবং Service বিক্রি করার চেষ্টা করে। এছাড়া, যদি আপনি একটি অত্যন্ত "Competitive Niche'' নিয়ে কাজ করেন , Marketplace এ আপনার অবস্থান ক্রমশ অস্থির/Unstable হয়ে উঠবে।

Marketplace charge selling fee/Commission:

Well, মার্কেটপ্লেসে এ কোন Free Lunche নেই। তারা আপনার পণ্য বিক্রি করে কোন Charity কাজ করে না। বেশিরভাগ মার্কেটপ্লেস তাদের service গুলির জন্য ফি নেয়। গড়ে, Marketplace Vendor দের প্রতিটি বিক্রয় থেকে 5-15% দিতে হয়।

No branding and personalization options:

একটি মার্কেটপ্লেস আপনাকে আপনার Personal Brand Promote এর যেকোন সুযোগ থেকে বঞ্চিত করে। আপনি আপনার Audience দের সাথে সরাসরি কথা বলতে পারবেন না এবং Brand Loyalty প্রতিষ্ঠার জন্য আপনি কোন বিপণন প্রচারণার//Marketing Campaign ব্যবস্থা করতে পারবেন না। মার্কেটপ্লেস গ্রাহকদের Loyalty  বাড়াতে এবং Better Recall করতে সাহায্য করে না। আপনি কখনই একটি মার্কেটপ্লেসে আপনার ওয়েবসাইটের Branding তৈরি করতে পারবেন না। আপনি কেবলমাত্র একটি কোম্পানির মধ্যে থেকে যান এবং আপনার পণ্যগুলি সেই কোম্পানির পণ্যগুলির মধ্যে একটি মাত্র। অনেক Brand conscious companies, মার্কেটপ্লেসে বিক্রি পছন্দ করে না, কারণ সেখানে তাদের পণ্যের Strength, Value, Quality ব্যাখ্যা করা একটু কঠিন।

Ecommerce Website এর সুবিধা:

A high degree of control:

আপনার E-Commerce Website সম্পূর্ণরূপে আপনার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। look and feel, design, layout, content এবং navigation সবকিছুই আপনার নিয়ন্ত্রণে। যদিও আপনার ওয়েবসাইট একটি ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মে তৈরি, আপনি এটি চালান। গ্রাহক আপনার অস্তিত্ব/Existence সম্পর্কে সচেতন। আপনার Reputation এবং আপনার পণ্য গ্রাহককে আপনার website এ নিয়ে আসে। আপনি এটিকে শেষ পর্যন্ত পরিচালনা করেন। অতএব, সাফল্য বা ব্যর্থতা আপনার কাঁধে নির্ভর করে। অতএব, এটিকে যতটা সম্ভব ভাল করে তুলুন যাতে,গ্রাহক যখন আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করে, 'wow'/'বাহ' ফ্যাক্টর অনুভব করেন।

Customer interaction:

একটি eCommerce website আপনাকে আপনার Audience/customer দের সাথে সরাসরি যোগাযোগের Source/Channels পেতে দেয় (chatbot conversations, emails, calls এর মাধ্যমে)। Customer-Brand সম্পর্ক তৈরির ফলে Brand Awareness আসে এবং আপনাকে বাজারে আরো প্রভাবশালী হতে সাহায্য করে। আপনার সাইটে Customer’s Behaviour আরও ভালভাবে পর্যবেক্ষণ করা যায়। আপনি Transactions, browsing history রেকর্ড করতে পারেন। অর্ডারের Average value, ওয়েবসাইটের প্রতিটি Page এ ব্যয় করা সময়, Conversion patterns history এবং অন্যান্য দিক, আসলে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে গ্রাহকরা কীভাবে আচরণ করেন সে সম্পর্কে আপনি সচেতন হতে পারেন। উপরন্তু, আপনি গ্রাহকদের ডেটা ক্যাপচার করতে পারেন যা আপনাকে Purchase Decisions এবং Buying Patterns উন্নত/Improve করতে সাহায্য করে। সামগ্রিকভাবে, আপনি conversion improve করতে পারেন।

Design Marketing campaigns:

এটি Customer এর Loyalty উন্নত করতে এবং আরও Better Recall করতে সাহায্য করে এবং আপনি গ্রাহকের মিথস্ক্রিয়াগুলি/Interactions ধরতে পারেন। অতএব, সেই অনুযায়ী, আপনি প্রচারগুলি ডিজাইন করতে পারেন। আপনি Customer দের কাছে পৌঁছাতে পারেন, আপনি Referral scheme চালাতে পারেন, আপনি Loyalty programs, Cross tie ups এবং আরও অনেক কিছু পরিকল্পনা করতে পারেন। এটি আপনাকে বিভিন্নভাবে আপনার Audience দের টার্গেট করতে সাহায্য করে। Google Ads, Facebook ads এবং এমনকি Instagram টার্গেটিং আপনাকে Brandiing এ সহায়তা করে। কিন্তু এগুলো সব Marketplace সম্ভব নয়।

Brand loyalty:

একটি ইকমার্স ওয়েবসাইট সাধারণত একটি ব্র্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব করে। সুতরাং, আপনার ওয়েবসাইটে আসা সমস্ত গ্রাহক, সম্ভবত আপনার কোম্পানিকে মনে রাখবেন,কারণ আপনার ওয়েবসাইটে আশেপাশে এমন কেউ নেই যারা তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে।

One-time investment and pocket more revenue:

একটি ওয়েবসাইটে Investment করা হচ্ছে এককালীন বিনিয়োগ যা বছরের পর বছর ধরে বিস্তৃত। আপনি মার্কেটপ্লেসের সাথে মার্জিন শেয়ার করা থেকে মুক্ত। মার্কেটপ্লেসের সাথে Margin শেয়ার করা থেকে আপনি মুক্ত থাকতে পারেন। অতএব আপনি আরও বেশি উপার্জন করতে পারেন এবং আপনার ওয়েবসাইটের Safety এবং Security সহ Multiple Features উপভোগ করতে পারেন।

Personalization:

আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট চালানো, আপনাকে আপনার Online Store কে যে কোন সময় এবং যেকোনো উপায়ে পরিবর্তন করার স্বাধীনতা দেয়। যখন আপনার ভোক্তাদের আচরণ পরিবর্তিত হয় এবং আপনার দ্রুত আপনার ইকমার্স প্ল্যাটফর্মকে তাদের প্রয়োজন অনুসারে কাস্টমাইজ করা প্রয়োজন হয়, তখন এই সুযোগটি অনেক মূল্যবান । যা বেশিরভাগ মার্কেটপ্লেসে Provide করা বেশ অসম্ভব।

No commission:

ওয়েবসাইটের মালিক হিসাবে, আপনার উপার্জনের অংশ অন্য কারো সাথে ভাগ করতে হবে না। "The lack of commission" একটি বড় পার্থক্য করে যখন আপনার উপার্জন উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পায়।

Ecommerce Website এর অসুবিধা:

eCommerce website development:

আপনার নিজের ওয়েবসাইটে বিনিয়োগ করা মার্কেটপ্লেসের সদস্য হওয়ার চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল হতে পারে। আপনার ওয়েবসাইটে কাজ করার জন্য ডেভেলপারদের নিয়োগ করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে, এর পাশাপাশি একটি Domain Name কেনা এবং নিরাপদ HTTPS সার্টিফিকেটের জন্য অর্থ প্রদান করার জন্য প্রস্তুতি নেওয়াও প্রয়োজন। এক্ষেত্রে WebHub হতে আপনার প্রথম পছন্দ। সুপার ফাস্ট ইকমার্স ওয়েবসাইট এবং ডায়নামিকব ফিচার নিয়ে করছে ওয়েব হাব এর আমার দোকান । 

Website maintenance:

একটি Well-designed website রক্ষণাবেক্ষণ এবং আপডেট প্রয়োজন, যা আপনার দায়িত্বও হয়ে ওঠে। কোন Bug বা Glitch দেখা দিলে, আপনার Developer কে এটি সমাধান করতে হবে।

SEO:

"Climbing to the top of Google’s search" একটি জটিল এবং সময়সাপেক্ষ প্রক্রিয়া। গুগল এ Visible হতে এবং আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকদের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে অন্তত ছয় মাস সময় লাগে।

Marketing:

Keywords খোঁজা, Marketing campaign তৈরি করা, প্রচার করা এবং অন্যান্য জিনিস যা আপনাকে পরিচালনা করতে হবে। এছাড়াও, এর জন্য আপনার Dedicated Manpower প্রয়োজন হবে। কিন্তু আপনি একটি Marketplace এ এই বোঝা থেকে মুক্ত। কিন্তু, যেহেতু আপনার কাছে Relevant Data আছে, তাই আপনি কিছু Marketing Expert দের সাথে শেয়ার করতে পারেন এবং আপনার ওয়েবসাইটের প্রচারে Focuse করতে পারেন। যদিও এটি একটি সমস্যা কিন্তু এটি শক্তিতে পরিণত হতে পারে

 

যেহেতু আমরা ই-কমার্স এবং মার্কেটপ্লেসের মধ্যে মূল পার্থক্য এবং তাদের বৈশিষ্ট্যগুলি নিয়ে আলোচনা করেছি, এখন সময় আমাদের সিদ্ধান্ত নেওয়ার। 

 

সুতরাং, আপনার ব্যবসার জন্য কোনটি ভাল? আপনার ব্যবসার জন্য WIN-WIN সমাধান কি?

যখন আপনাকে দুটোর মধ্যে যে কোন একটি বেছে নিতে হবে, আপনার Priorities এবং Budget এর মধ্যে কোনটি সবচেয়ে উপযুক্ত তা দেখুন। আপনার পণ্যটি Niche বা General কিনা তা বিশ্লেষণ করুন। Right choice করার জন্য, আপনার মনে রাখা উচিত, যে কোনও eCommerce solution আপনার ব্যবসার প্রয়োজনের (Business need) সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়া উচিত।

 আপনি যদি আপনার পণ্যে যতটা সম্ভব Traffic, Customer পেতে আগ্রহী হন এবং বর্তমানে SEO বা পেইড বিজ্ঞাপনের জন্য কোন বাজেট না থাকে, তাহলে আপনার পণ্যগুলি Marketplaces এ  বিক্রি করার কথা বিবেচনা করুন। মার্কেটপ্লেসগুলি ই-কমার্সের নতুনদের জন্য একটি দুর্দান্ত Starting point; তারা আপনাকে একটি স্টোর তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় খরচ, ঝুঁকি এবং সময় আগে থেকে হ্রাস করতে দেয়।

আপনি যদি Online Retail এর সাথে জড়িত হতে চলেছেন, তাহলে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসের সাথে যাওয়া বুদ্ধিমানের কাজ হতে পারে। এইভাবে, আপনার ব্র্যান্ড অসংখ্য প্ল্যাটফর্মে উপস্থাপন করা হবে। যা আপনার Brand awareness বৃদ্ধি করবে এবং এর ফলে বিক্রির পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে।

 

কিন্তু যদি আপনি Brand conscious হন, একটি দীর্ঘ Innings খেলতে চান, এবং সর্বাধিক আয় করতে চান তাহলে Webhub প্ল্যাটফর্মে একটি ওয়েবসাইটের মালিকানা অবশ্যই আপনার জন্য সেরা সমাধান।

যদি আপনার ব্যবসায়িক Activity/ক্রিয়াকলাপ Service সরবরাহ , IT consulting বা Healthcare services হয়, আপনার নিজের ইকমার্স ওয়েবসাইট শুরু করা আরও উপকারী হবে। কারণ এটি আপনাকে Customer journey এবং Marketing campaign গুলিকে নিয়ন্ত্রণ করতে দেবে যা শেষ পর্যন্ত আপনার ব্র্যান্ডের প্রতি আপনার Audience দের আকৃষ্ট করবে। আপনার নিজস্ব eCommerce website, আপনাকে বিক্রয় প্রক্রিয়ার (Sales process) উপর সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ দেয়।

“selling on both types of platforms can be valuable, because it provides the best of both worlds” সর্বোপরি, বিভিন্ন Marketplace/চ্যানেলে আপনার পণ্য ছড়িয়ে দেওয়া এবং বিক্রি করা সবচেয়ে ভালো, কিন্তু আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইটকে উপেক্ষা করা এবং শুধুমাত্র মার্কেটপ্লেস বিক্রির উপর মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করা ভুল হবে এবং আপনার Business ত্রর Growth কে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

...See More
অনলাইন/ই-কমার্স/ই-ব্যবসার সুবিধা-অসুবিধা

অনলাইন/ই-কমার্স/ই-ব্যবসার সুবিধা-অসুবিধা

আপনি কি -কমার্স ব্যবসা শুরু করার কথা ভাবছেন?

অসাধারণ! এখন শুরু করার সঠিক সময়। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী e-retail বিক্রয় 2021 সালের মধ্যে 4.8 ট্রিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। আসলে, ইকমার্স এত দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে যে এটি 2.14 বিলিয়ন মানুষকে serve করবে বলে আশা করা হচ্ছে। অবশ্যই, ইকমার্সের অনেক সুবিধা রয়েছে, যা আমরা নীচে আলোচনা করব।

এই নিবন্ধে, আপনি অনলাইন স্টোরগুলির সুবিধা এবং অসুবিধাগুলি জানতে পারবেন, যাতে আপনি নিজের জন্য সিদ্ধান্ত নিতে পারেন যে এটি আপনার জন্য সঠিক ব্যবসার ধরন কিনা।

অনলাইন ব্যবসার এই সুবিধাগুলি আপনাকে আপনার উদ্যোক্তার যাত্রা জুড়ে Excited এবং Motivated থাকতে সাহায্য করবে।

E-Business/E-commerce কি?

1996 সালে, আইবিএম এর মার্কেটিং এবং ইন্টারনেট টিম ই-বিজনেস (E-Business) তৈরি করেছিল। এটি ইলেকট্রনিক ব্যবসা বা অনলাইন ব্যবসার জন্য দাঁড়িয়েছে। এটি এমন একটি ব্যবসা যেখানে অনলাইনে লেনদেন হয় এবং ক্রেতা এবং বিক্রেতার ব্যক্তিগতভাবে দেখা করার প্রয়োজন হয় না। ইলেকট্রনিক ব্যবসা ই-কমার্সের একটি অংশ, অর্থাৎ ইলেকট্রনিক কমার্স। এটি ইলেকট্রনিক কমার্স বা ইন্টারনেট কমার্স নামেও পরিচিত।

ই-কমার্স/ই-ব্যবসার সুবিধা:

Reduced Costs:

ইকমার্স সুবিধাগুলির মধ্যে একটি হল, এটির স্টার্টআপ খরচ কম। Physical Retail স্টোরগুলিকে, তাদের দোকানের লোকেশন ভাড়া নিতে হাজার হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে হয়। তাদের বেশ কয়েকটি অগ্রিম খরচ রয়েছে, যেমন- Store signs,স্টোর ডিজাইন, ইনভেন্টরি কেনা, বিক্রয় সরঞ্জাম এবং আরও অনেক কিছু, এবং শুধু তাই নয়, দোকানের মালিককে কাজ করতে এবং প্রতিটি লোকেশন চালানোর জন্য কর্মী নিয়োগ করতে হয়। দোকানে পণ্যের মূল্যের উপর নির্ভর করে তাদের নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগের প্রয়োজন হতে পারে।

এজন্যই একটি Traditional অফিস-ভিত্তিক কোম্পানি স্থাপনের তুলনায় একটি অনলাইন ব্যবসা করার প্রধান সুবিধা হল “খরচের পার্থক্য”। যদিও একটি ডোমেইন Secure এবং একটি Website তৈরির সাথে ফি সংশ্লিষ্ট রয়েছে, কিন্তু Leasing এবং "Maintaining physical premises" এর তুলনায় এগুলি ন্যূনতম।

E-business/E-commerce এ আপনি কোন ধরনের ইকমার্স ব্যবসা পরিচালনা করবেন, তার উপর নির্ভর করে যখন আপনি একটি নির্দিষ্ট Level এ Reach করবেন তখনই আপনাকে কর্মচারী নিয়োগের প্রয়োজন হতে পারে। যেহেতু আপনার দোকান অনলাইন ভিত্তিক, এজন্য কর্মচারীরা দূর থেকে কাজ করতে পারে, যার ফলে আপনার কোম্পানির জন্য উপযুক্ত কর্মী খুঁজে পাওয়া সহজ হয়। আপনি যদি অনলাইনে ড্রপশিপ বেছে নেন, তাহলে আপনাকে প্রচুর অর্থ সাশ্রয় করে বাল্ক ইনভেন্টরি (Bulk Inventory) কিনতে হবে না।

With ecommerce, branding is also cheaper:

ইকমার্সের সাথে, ব্র্যান্ডিংও সস্তা। আপনার দোকানের Logo প্রায়ই একটি দোকানের "store sign" চেয়ে বেশি সাশ্রয়ী হয়। E-commerce ব্যবসার খরচ সাধারণত অনেক কম। যা নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য অন্যতম আকর্ষণীয় সুবিধা।

24/7 Availability:

আপনার Website একটি "Invaluable E-business tool"। এমন কোন ই-বিজনেস মডেল বা ই-বিজনেস মালিক নেই যার ওয়েবসাইট নেই। আপনার ওয়েবসাইট থাকলে আরো ব্যবসায়িক সুবিধার দরজা খুলে যায়। একবার আপনার ওয়েবসাইট বা সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলগুলি চালু হলে (Like Facebook, LinkedIn, Instagram etc) , আপনার অনলাইন ব্যবসা কোন সময় সীমাবদ্ধতা ছাড়াই, 24/7 অনলাইন লেনদেনের জন্য খোলা থাকে । এই 24/7 availability ই-ব্যবসার একটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা। Traditional ব্যবসায় নিয়মিত 9 to 8 এর কোন সীমাবদ্ধতা নেই, যা আপনি একটি Traditional ব্যবসায়/ Physical Store গুলোতে দেখতে পান।

একটি Traditional ব্যবসা/Physical Store থাকার অর্থ, আপনাকে পণ্য ও পরিষেবা কিনতে গ্রাহকদের প্রভাবিত করতে কর্মস্থলে আসতে হবে, কর্মীদের বেতন দিতে হবে। কিন্তু আপনার অনলাইন স্টোরের মাধ্যমে, আপনার গ্রাহকদের জন্য তাদের সুবিধামতো সময়ে, তাদের অনলাইন কেনাকাটা করা সহজ। এটি আপনার ব্র্যান্ডের সাথে গ্রাহকের অভিজ্ঞতা "Improve" করতে সাহায্য করে। আপনার সাথে ব্যবসায়িক লেনদেনের জন্য তাদের যা দরকার তা হল ইন্টারনেট অ্যাক্সেস, একটি ইন্টারনেট-সংযুক্ত ফোন বা কম্পিউটার, তাদের ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড (Depend on country preferences)। যদিও, আপনার ফিজিক্যাল প্রোডাক্টগুলিকে এখনও ফিজিক্যাল স্টোরে সংরক্ষণ করতে হবে । ই-কমার্স ব্যবসার জন্য স্টোরেজ স্পেস প্রায়ই খুচরা স্পেসের তুলনায় সস্তা, এবং আপনাকে "Potential customer" দের জন্য Foot traffic এবং Parking spaces মতো বিষয়গুলি নিয়ে চিন্তাও করতে হবে না।

Global Reach:

ইন্টারনেটের মাধ্যমে, আপনি আপনার পণ্য বা সেবা বিশ্বব্যাপী দর্শকদের কাছে পৌঁছাতে পারেন। এখানে ভৌগোলিক অঞ্চলে কোন "Physical restrictions" সীমাবদ্ধতা নেই, যা আপনি একটি Traditional ব্যবসার সাথে দেখেন। একটি Physical Business শুধুমাত্র একটি স্থানীয় এলাকায় গ্রাহকদের বিজ্ঞাপন দিতে পারে, যেখানে একটি অনলাইন ব্যবসা থাকার মানে হল আপনি আপনার কোম্পানিকে বিপুল সংখ্যক Potential Customers এর কাছে Reach করতে পারেন।

No Location Disadvantage:

Physical স্টোরের জন্য, আপনার ব্যবসার সঠিক Location খুঁজে বের করা অপরিহার্য। এটি আপনার সাপ্লাই চেইনকেও প্রভাবিত করতে পারে। যদি আপনি ই-ব্যবসা পরিচালনা করেন, তবে এটি অপরিহার্য হয় না। আপনি 24 ঘন্টার ভিত্তিতে আপনার ওয়েবসাইটে গ্রাহক সেবা বা অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য একটি Virtual Assistant তৈরি করতে পারেন/ নিয়োগ করতে পারেন। E-commerce ডিজিটাল মার্কেটিং এর সাহায্যে আপনাকে আপনার Location এর বাইরে Large Customer এর কাছে পৌঁছানোর জন্য (Reach) অ্যাক্সেস দেয়।

Reduced Staff Requirements:

যেখানে একটি Physical Retail Outlet এ মালিককে একটি বিক্রয় কর্মী নিয়োগ করতে হয়, যেখানে একটি অনলাইন ব্যবসার সাথে অনেক কাজ স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পন্ন হয়। উদাহরণস্বরূপ, অনলাইনে একটি আইটেম কেনার জন্য পেমেন্ট নিতে একজন ক্যাশিয়ারের প্রয়োজন হয় না: একজন ক্রেতা কেবল তার কার্ডের বিবরণ প্রবেশ করে এবং পণ্যের মূল্য কয়েক মিনিটের মধ্যে প্রদান সম্পন্ন হয় ।

Potential Income:

ইকমার্সের আরেকটি সুবিধা হল যে অনলাইন স্টোর সবসময় ব্যবসার জন্য খোলা থাকে। ফেসবুক বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে, আপনি যেকোনো সময় বিশ্বের যে কোনো প্রান্তে,যে কাউকে আপনার পণ্য কিনতে আকৃষ্ট করতে পারেন, যেমন 11 টা থেকে ভোর 4 টার মধ্যে।

বিপরীতে, বেশিরভাগ Physical Store গুলি সকাল 9 টা থেকে রাত 9 টার মধ্যে চালু থাকে। Physical Store এ সব সময় Available থাকার মাধ্যমে, আপনি এমন Customer দের আকৃষ্ট করতে পারেন যারা আউটলেট খোলা থাকলে সাধারণত দোকানে পণ্য সংগ্রহ করবেন। আপনার সেই Customer সম্পর্কে চিন্তা করুন,যারা (Normal hours) স্বাভাবিক ঘন্টা কাজ করে না, যারা খুব ব্যস্ত এবং কিছু কেনার জন্য দোকানে যাওয়ার জন্য পর্যাপ্ত সময় পান না। যাদের "Odd Work Schedules" থাকতে পারে অথবা যাদের ব্যক্তিগতভাবে কেনাকাটা করার সময় নেই, একটি ইকমার্স স্টোর আপনাকে তাদের আকৃষ্ট করতে দেয়।

রাতে অর্ডার করা গ্রাহকদের কি হবে? তাদের Accommodate করার জন্য, আপনার রাতের শিফটে কর্মচারী থাকার দরকার নেই। আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার অর্ডারিং সিস্টেমগুলিকে স্বয়ংক্রিয় করা,যাতে করে গ্রাহকরা অর্ডার দিলে একটি নিশ্চিতকরণ ইমেল পান।

Able to Process a High Number of Orders:

আপনি যদি E-commerce/E-business বেছে নেন, তাহলে আপনি সহজেই "High number of orders"  পেতে পারেন। যখন আপনার ব্যবসা ক্রমাগত বাড়তে শুরু করবে, তখন আপনি Order Processing এ সাহায্য করার জন্য কর্মীদের নিয়োগ করা বেছে নিতে পারেন। এছাড়াও, ড্রপশিপিংয়ের সাথে, আপনার গ্রাহকের কাছে পণ্যটি বিক্রি করার জন্য আপনার কাছে Physically পণ্যটি Instock থাকার প্রয়োজন নেই। অতএব আপনাকে স্টক Stock Control সম্পর্কে চিন্তা করতে হবে না যেমন physical store এ আছে। খুচরা দোকানে, Long queues/Products out of Stock মানুষকে কেনাকাটা থেকে বিরত করতে পারে। ইকমার্সে, অপেক্ষা করার দরকার নেই। একজন গ্রাহক বিলম্ব না করে তাদের নিজস্ব সময়সূচীতে অর্ডার দিতে পারেন, যার ফলে আপনি প্রচুর সংখ্যক অর্ডার গ্রহণ করতে পারবেন।

You can Grow Your Business Organically with Content:

ইকমার্সের মাধ্যমে, E-commerce Blogging এর মাধ্যমে Organic Traffic এবং বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারেন। ভিডিও তৈরি করা থেকে শুরু করে ব্লগের বিষয়বস্তু লেখা পর্যন্ত, বেশি অর্থ ব্যয় না করে আপনি ট্রাফিক আনতে এবং বিক্রয় চালানোর জন্য আপনার দোকানকে অপ্টিমাইজ করতে সক্ষম হবেন। এছাড়াও, আপনি  content creation এর মাধ্যমে অর্গানিকভাবে ট্রাফিক আনতে পারবেন,শুধু তাই নয় আপনি সেই গ্রাহকদের পুনরায় বিজ্ঞাপন দিয়ে আকর্ষণ করতে, স্থায়ী করতে সক্ষম হবেন। physical shop দোকানের মালিককে তাদের গ্রাহকদের কাছে দোকান পরিদর্শন করতে উৎসাহিত করতে হয়,আরও বেশি ক্রেতা পেতে তাদের একটি "High traffic" এলাকায় বাজারজাত (Marketing) নিশ্চিত করতে হয়।

Not Dependent on Opening Hours:

E-commerce/E-business এ, আপনার ভোক্তারা আপনার ব্যবসা/দোকান খোলার সময়গুলির উপর নির্ভর করে না কারণ তারা আপনার ওয়েবসাইট, অ্যাপ বা সামাজিক নেটওয়ার্ক চ্যানেলের (Facebook Page, LinkedIn, intragrame) মাধ্যমে আপনার সাথে চব্বিশ ঘন্টা ব্যবসা করতে পারে,পণ্য কিনতে পারে।

ই-কমার্স আপনার ব্যবসাকে Physical Retailers বিক্রেতাদের তুলনায় সহজতর করতে দেয়।

 

Immediate Price Comparison:

আপনার গ্রাহকরা অনলাইনে, আপনার পণ্যের দাম আপনার প্রতিযোগীদের সাথে তুলনা করে, তারা Fair deal / সর্বনিম্ন পাচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করতে পারেন ।

 

Convenience:

একটি ই-ব্যবসার মাধ্যমে, আপনার গ্রাহকরা তাদের বাসা বা অফিসে বসে Comfort/স্বাচ্ছন্দ্য থেকে আপনার সাথে ব্যবসা করতে পারেন, পণ্য কিনতে পারেন। এই সুবিধা,যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, এই ভোক্তাদের এই ই-ব্যবসার প্রতি আকৃষ্ট করে। আপনার ব্র্যান্ড আপনার গ্রাহকদের যত বেশি সুবিধা দেয়, ততই Customer আপনার সাথে ব্যবসা করতে পারে,পণ্য কিনতে পারে এবং আপনার ব্র্যান্ডের ব্র্যান্ড ভ্যালু তৈরির সম্ভাবনা রাখে।

 

ই-কমার্স ব্যবসায় কিছু অসুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে:

 

  • গ্রাহকরা পণ্য কেনার আগে চেক করতে পারে না,

  • গ্রাহকরা অধৈর্য হতে পারে ,

  • শিপিং সময় দীর্ঘ হতে পারে  (কিন্তু আপনি কতটা ভাল সেবা দিতে পারেন তার উপর নির্ভর করে এটি পরিবর্তন হতে পারে)

  • ইকমার্স অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক,

  • Site Crash/Server Down সময় কেউ কিনতে পারে না।

 

As with every pro, there is a con. ই-ব্যবসার অসুবিধার চেয়ে অনেক বেশি সুবিধা রয়েছে। আপনার ব্যবসার Rules, Marketing policy, আপনি কিভাবে গ্রহণ করেন, আপনি কোন কৌশল প্রয়োগ করেন তার উপর অসুবিধা নির্ভর করে। আপনি যত ভালো Strategy প্রয়োগ করতে পারবেন, ততই অসুবিধা কমাতে পারবেন এবং আপনি আরো সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন ।

মনে রাখবেন-

“Every problem is a gift; without problems we would not grow.” – Anthony Robbins.

...See More
ব্যবসা ক্ষেত্রে সফল হতে বিল গেটসের ১২ টি উপদেশ

ব্যবসা ক্ষেত্রে সফল হতে বিল গেটসের ১২ টি উপদেশ

বিল গেটস বিশ্বের অন্যতম সফল ব্যবসায়ী। একজন Magnate, philanthropist, investor, এবং মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা। তিনি সর্বকালের অন্যতম সুপরিচিত pioneers। মাইক্রোসফটে তার সাফল্য তাকে বিশ্বের অন্যতম ধনী ব্যক্তির খেতাব এনে দিয়েছে। সূচনা থেকে শুরু করে একটি Software empire স্থাপন করা পর্যন্ত, তার যাত্রা একটি "Roller coaster", যা আপনি শুরু করতে চলেছেন। অনেক তরুণ উদ্যোক্তা তাদের ব্যবসায়িক যাত্রায় বিল গেটসের পরামর্শ চান।

বিল গেটস কি করে একজন সফল উদ্যোক্তা?

সম্প্রতি রয়টার্সের প্রতিবেদনে (reported by Reuters) জানানো হয়েছে, বিল গেটস হতে পারেন বিশ্বের প্রথম ট্রিলিয়নিয়ার। আপনি যদি কখনও ভাবছেন যে তিনি কীভাবে সাফল্যের গল্প হয়ে উঠলেন, এবং “Multi-billionaire” হয়ে উঠলেন, জানতে আজকের নিবন্ধ পড়ুন। নীচে 12 টি টিপস যা Bill Gates বিভিন্ন সময়ে উদ্যোক্তাদের সাথে Share করেছেন। সেগুলো পড়ে দেখুন আপনার কোম্পানি এবং ব্র্যান্ডকে সাহায্য করার জন্য তিনি যা শেয়ার করেন তা আপনি কিভাবে ব্যবহার করতে পারেন।

 

1. Have Patience with your Ideas/ Believe in your vision:

বিল গেটসের উদ্যোক্তাদের জন্য প্রথম পরামর্শ হল, “Have Patience with your Ideas” মানে আপনার Ideas এর উপর ধৈর্য্য ধারণ করা। তিনি মানুষকে স্মরণ করিয়ে দেন যে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের মাধ্যমে তারা যে সাফল্যের স্তর পেয়েছিল, তা চার বছরেরও বেশি সময় লেগেছে। একটি great idea এর ক্ষেত্রে গেটস ধৈর্য এবং অধ্যবসায়ের গুরুত্ব উপলব্ধি করেন।

এটি আপনার নিজের ব্যবসায় প্রয়োগ করুন। আপনার বর্তমান গ্রাহকদের চাহিদা মেটাতে আপনি কীভাবে আপনার ধারণাটি গ্রহণ করতে পারেন এবং এটিকে ভালভাবে Apply করতে পারেন, সে সম্পর্কে আপনাকে ভাবতে হবে।

আমাদের আজকের যে প্রযুক্তি রয়েছে তা নিয়েও চিন্তা করুন এবং ভবিষ্যতে আপনি কীভাবে আপনার ধারণাটি এগিয়ে নিতে পারেন তা বিবেচনা করুন। আমরা "বর্তমান" এ বাস করি কিন্তু ভবিষ্যতের কথাও মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ এবং পাশাপাশি এটাও মনে রাখা জরুরী যে, পরিবর্তনশীল প্রযুক্তি এবং গ্রাহকের চাহিদা কীভাবে পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা নির্দেশ করবে। আপনার গ্রাহকদের চাহিদার সাথে সামঞ্জস্য করতে বাজারের যে পরিবর্তনগুলি প্রয়োজন তা মেনে চলার চেষ্টা করা উচিত।আপনাকে সবসময় আপনার গ্রাহকদের চাহিদার সাথে সামঞ্জস্য করতে বাজারের যে পরিবর্তন প্রয়োজন তা মেনে চলার চেষ্টা করতে হবে।

2. Start as Early as Possible:

বিল গেটসের সাফল্যের আরেকটি শিক্ষা হল যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শুরু করা। বিল গেটস মাত্র 13 বছর বয়সে কম্পিউটার নিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন।

3. Think Ahead of the Time:

প্রতিযোগিতায় এক ধাপ এগিয়ে থাকার জন্য,আপনাকে ভবিষ্যত predict করতে হবে এবং তার জন্য আগাম প্রস্তুতি নিতে হবে। বিল গেটসের সাফল্য, আংশিকভাবে তার "futuristic vision" এর উপর নির্ভর ছিল। এই কারণে, মাইক্রোসফট সবসময় প্রতিযোগিতায় এক ধাপ এগিয়ে ছিল। এমনকি যখন তিনি অবসর নিচ্ছিলেন, তখনও তিনি তার সময়ের আগে চিন্তা করেছিলেন। তিনি তার "Interview to PC magazine" সাক্ষাৎকারে, তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে Tablet PCs, Internet TV, এবং natural user interface ব্যবহারকারী আগামী বছরগুলিতে জনপ্রিয়তা অর্জন করবে এবং ইতিহাস প্রমাণ করে যে তিনি সঠিক ছিলেন।

4. Work hard-no excuses:

বিল গেটস উদ্যোক্তাদেরও মনে করিয়ে দেয় যে, তাদের কঠোর পরিশ্রম করা উচিত এবং তারা কেন নিজেদের কাজে লাগাচ্ছে না বা তাদের সময়কে কাজে লাগাচ্ছে না তার জন্য অজুহাত দেওয়া উচিত নয়। তিনি বলেন যে, তিনি দিনের বেলা যে ইমেলগুলি পেয়েছিলেন তার উত্তর দিতে  সন্ধ্যা এবং সাপ্তাহিক ছুটি দিন ব্যবহার করেছিলেন, কারণ দিনে উত্তর দেওয়ার সময় ছিল না। তিনি পরবর্তীতে কী করতে চান তা Reflect করতে এবং চিন্তা করতে, বছরে দুই সপ্তাহ ছুটি নেন।

পণ্য এবং পরিষেবা তৈরির ক্ষেত্রে এই ধরণের Motivation এবং initiative এর প্রয়োজন হয়, যা আপনার ব্র্যান্ড প্রচার করতে পারে যা আপনাকে আপনার লক্ষ্যে পৌঁছাতে এবং বিশ্বে "Great products" আনতে সহায়তা করবে।

5. You should never stop learning

বিল গেটস এবং তার ভালো বন্ধু ওয়ারেন বাফেট দুজনেই বলেছেন যে, "Curiosity is the single most important factor in their success-This makes perfect sense” জিনিস সম্পর্কে কৌতূহলী হওয়া, জিনিসগুলি কীভাবে কাজ করে তা খুঁজে বের করতে আপনাকে সহায়তা করে। আপনি বিভিন্ন পরিস্থিতিতে যা শিখেছেন তা প্রয়োগ করতে পারেন।

6. Learn from the failure:

যখন হতাশার কথা আসে, তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য বিল গেটসের পরামর্শ, এটি গ্রহণ করার। তিনি নিজের ভুল থেকে শেখা, এবং কান্না এবং হাল ছেড়ে দেওয়ার পরিবর্তে,এগিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

তার জীবনের ব্যর্থতা মোকাবেলা করার জন্য তার দৃষ্টিভঙ্গি, তার একটি বিখ্যাত উক্তি থেকে প্রতিফলিত হয়,

“IT’S GREAT TO CELEBRATE SUCCESS, BUT IT’S MORE IMPORTANT TO HEED THE LESSONS OF FAILURE.”

বিল গেটসের মতে, "Failure,is just as critical as performance" এটি আপনাকে ড্রয়িং বোর্ডে ফিরে যেতে এবং ব্যর্থতার ত্রুটি এবং কারণগুলি অনুসন্ধান করতে বাধ্য করে।

7. Be Ready to Takes Risks:

ব্যবসা শুরু করা একটু জুয়া খেলার মতো, আপনি জিতবেন কি না তা আপনি সবসময় নিশ্চিত নন। যাইহোক, একমাত্র পার্থক্য হল যে আপনি আপনার ব্যবসার সাফল্য নিশ্চিত করার জন্য যথেষ্ট কৌশলী এবং পরিকল্পনা করতে পারেন। বিল গেটসের এই উক্তিটি শুধুমাত্র উদ্যোক্তাদের জন্য প্রযোজ্য নয়, এটি সামগ্রিকভাবে জীবনেও প্রযোজ্য হতে পারে। 

“Business is a money game with few rules and a lot of risk.”–    Bill Gates

বিশ্ব অনিশ্চয়তায় ভরা। জীবনের কোন নিয়ম নেই এবং আপনার গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য আপনাকে কিছু জিনিস ত্যাগ করতে হবে। লোকেরা আপনাকে অগ্রাহ্য করবে এবং আপনাকে প্রত্যাখ্যান করবে কিন্তু দিনের শেষে, যদি আপনি চালিয়ে যাওয়ার সাহস জোগাতে সক্ষম হন তবে কিছুই আপনার পথে পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে না ।

8. Be Committed and Passionate:

আপনি যা পছন্দ করেন তার প্রতি আপনার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ (committed) হওয়া দরকার এবং আপনি যা করেন তার প্রতি আপনার দুর্দান্ত আবেগ ((passion) থাকতে হবে। এই পৃথিবীর সফল মানুষ গুলো, এটিকে এত সহজ দেখায় কারণ তারা যা করছে তা তারা পছন্দ করে। আপনি যদি খুব Stressful এবং খুব কঠিন জিনিস খুঁজে পান, তাহলে আমি নিশ্চিত নই যে আপনি সঠিক কাজ করছেন।

9. Believe in your vision:

যখন তিনি প্রথমবারের মতো উইন্ডোজ প্ল্যাটফর্মটি বিশ্বের কাছে তুলে ধরেন, তখন থেকেই গেটস উদ্যোক্তাদের বলেছিলেন- "Believe in your vision"

He stresses that, “To be successful as an entrepreneur, you have to have a sense of vision that far surpasses your present status quo”. Even if you do not have a plan as to how you are going to make your vision work, you must always keep it in mind if you are going to reach your goals.

 

10. Life is the best school, not university or college:

আপনি যতই বই পড়ুন না কেন, আপনি যতই পরীক্ষা দিন না কেন, বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজের কোন কিছুই আপনাকে বাস্তব জগতে জীবনের জন্য সঠিকভাবে প্রস্তুত করতে পারে না।

“If you think your teacher is tough, wait until you get a boss. He doesn’t have tenure.” – Bill Gates

11. Recruit the best people:

আপনার সর্বদা সেরা লোকদের পাওয়া এবং নিয়োগ করা উচিত। তারপর তাদের প্রশিক্ষণ দিন এবং কীভাবে তাদের রাখা যায় তা তা চিন্তা করুন। best people নিয়োগ করতে, কিছু সময় লাগে। His competitor, Steve Jobs called them “A players” কোনটি আগাছা করা উচিত এবং কোনটি রাখা উচিত তা আপনাকে জানতে হবে। আপনার সর্বদা Quantity চেয়ে Quality কে প্রথমে রাখা উচিত । এমন Specialists দের সন্ধান করুন যারা আপনার Idea তে বিশ্বাস করে ।

12. Enjoy what you love to do:

একটি সাক্ষাৎকারে, বিল গেটস বলেছিলেন যে মানুষের প্রতিদিনের কাজগুলি উপভোগ করা উচিত। তিনি জনপ্রিয় ছিলেন কারণ তিনি মাইক্রোসফটের সিইও হিসেবে তার ভূমিকায় বলেছিলেন যে, তিনি স্মার্ট মানুষের সাথে কাজ করতে এবং নতুন সমস্যা সমাধান করতে উপভোগ করেন। গেটস বিশ্বাস করেন যে আপনি যা করেন তা আপনাকে অবশ্যই উপভোগ করতে হবে, যাই হোক না কেন। গেটস বলেছেন যে আপনার কেবলমাত্র আপনার পছন্দের কাজটিই করা উচিত যাতে আপনি এটি নিয়মিত করার জন্য আরও অনুপ্রাণিত হন।

Bill Gates career has been marked by his incredible vision. Microsoft beat out the competition largely because they were always looking one step ahead, to the next revolutionary idea.

The lesson here: if you want to get ahead in business, think ahead.

...See More
বাংলাদেশের একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইটে ব্লগ থাকার উপকারিতা…

বাংলাদেশের একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইটে ব্লগ থাকার উপকারিতা…

প্রথমেই জেনে নেয়া যাক ব্লগ আসলে কি ?... 

ব্লগ হচ্ছে একটি ওয়েবসাইট এর অংশ যেখানে আপনি আপনার ব্যবসায়ের, পণ্যের, অথবা বর্তমান মার্কেট এ ঘটে যাওয়া সকল তথ্য প্রকাশ করতে পারেন। এক্ষত্রে আপনার ব্যবসা অনুযায়ী ব্লগ এর ধরণ নির্ভর করবে।

উদাহরণ- ১ মনে করেন আপনি “Mobile Accessories” নিয়ে কাজ করনে তাহলে আপনি ওই সকল এক্সসরিজ ব্যাভহারের ভিবিন্ন টিপ্স এবং ট্রিক্স নিয়ে একটি ব্লগ তৈরি করতে পারবেন।

উদাহরণ- ২ মনেকরেন  আপনি “Weight Loss” আইটেম নিয়ে কাজ করনে তাহলে আপনি ভিবিন্ন “Weight Loss” আইটেম ব্যাবহারের ভিবিন্ন টিপ্স এবং ট্রিক্স নিয়ে একটি ব্লগ তৈরি করতে পারবেন এই ক্ষত্রে ইতে পূর্বে আপনার পণ্য জারা ব্যাবহার করেছে তাদের নিয়ে প্রমান সহ কিছু ব্লগ লিখতে পারবে যা আপনার বিক্রয় বিদ্ধিতে অনেক ভড় ভুমিখা রাখবে।

কিন্তু এখানে বলে নেয়া ভালো, আপনি যদি সময় নিয়ে, ইউনিক ব্লগ লিখতে না পারেন,তাহলে ব্লগ থাকা আর না থাকা সমান কথা।

আমরা সর্বদাই আমাদের ক্লাইন্টদের প্রয়োজনীতা মাথায় রেখে সম্পূর্ণ নতুন ভাবে ব্লগ লিখে থাকি। এতে করে দেখা যায়, দিনশেষ এ তারা একটি ভালো রেজাল্ট নিয়ে আসে এবং আমরাও আমাদের দিক থেকে নিশ্চিন্ত থাকি।

 ই-কমার্স ওয়েবসাইটে ব্লগ থাকার উপকারিতা…

  • ব্লগ এর মাধ্যমে আপনি আপনার পন্য/সেবার ভিবিন্য দিক সম্পর্কে গ্রাহকের কাছে তুলে ধরতে পারবেন ।
  • একটি ব্লগ আপনার পন্যা সম্পর্কে গ্রাহকের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জনে সাহায্য করবে।
  • একটি ব্লগ আপনাকে নতুন ক্রেতা আপনার ওয়েবসাইটে টেনে আন্তে সহযোগিতা করবে
  •  নতুন কোন পণ্য/ সার্ভিস নিয়ে আসলে ব্লগের মদ্ধমে গ্রাহকে পরিপূর্ণ ধারনা দিতে পারবেন।
  •  গ্রাহক কোন পণ্যের সরাসরি বিক্রয় বিজ্ঞাপন এর চাইতে ওই পণ্য ব্যাবহারে   উপকারিতি ও ব্যাবহার পদ্দতি সম্পর্কে যানতে বেশি আগ্রহি থাকে।
  • আপনি সহজেই ব্লগ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া তে শেয়ার করতে পারবেন। এতে করে আপনার পোস্টগুলির আশেপাশে একটি সম্প্রদায় অথবা কমিউনিটি তৈরি করতে আপনাকে সাহায্য করবে
  • এসসিও সম্পর্কে সকলের একটা হালকা ধারণা রয়েছে আমি মনে করিI এসইওর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল লিঙ্কিং। ব্যবহারকারীদের দরকারী তথ্য সরবরাহ করার সময় আপনি যদি আপনার ব্যবসায় ধরণ অথবা পণ্য নিয়ে আলোচনা করে এমন ব্লগ পোস্ট তৈরি করেন তবে এটি ট্রাফিক তৈরি করতে পারে এবং সার্চ ইঞ্জিন সাথে র‌্যাঙ্কিং উন্নত করতে পারে।
  • একটি ব্লগ আপনার আগ্রহের একটি নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে আপনার খ্যাতি তৈরি করতে পারে।
  • গবেষণা থেকে দেখা যায় যে প্রায় 80% সংস্থাগুলি "এখনই কিনুন" এজেন্ডার পরিবর্তে ধারাবাহিক নিবন্ধ আকারে বিজ্ঞাপন দেওয়া পছন্দ করে। আর এই ব্লগ এর মাধ্যমেই আপনি আপনার পণ্যের বিজ্ঞাপন দিতে পারবেনI

এছাড়াও আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতার জন্য ব্লগ সেকশন এর খুবই প্রয়োজনI এখনো যারা মনে করছেন এর উপকারিতা হয়তো সীমিত সময়ের জন্য, তাদের উদ্দেশ্যে একটাই কথাই বলার আছেI যতদিন পর্যন্ত আপনি আপনার ক্রেতাকে সঠিক পথ নির্দেশনা দিতে পারবেন, ঠিক ততদিন পর্যন্তই আপনার ব্যবসায়ের চাকা চলতে থাকবেI

 বিঃদ্রঃ-  খুব শিগ্রহী আরেকটি লেখা প্রকাশ করবো ব্লগ লেখার ভিবিন্ন নিয়ম নিয়ে সাথেই থাকুন ...

...See More
ফ্যাশন ডিজিটাল মার্কেটিং: বিক্রয় বৃদ্ধির ৭ কৌশল

ফ্যাশন ডিজিটাল মার্কেটিং: বিক্রয় বৃদ্ধির ৭ কৌশল

জিন্স কেনার উদ্দেশে একদিন একটা ফ্যাশন স্টোরে ঢুকলাম | তো অনেকক্ষণ খোজাখুজির পর একটা দারুন জিন্স পাইলাম-কমফরটেবল এবং পরে দেখলাম বেশ ভালো লাগছে | যাইহোক মোটামুটি মাইন্ডসেট নিয়ে নেব, এমন সময় দেখলাম জিন্স টা হাটুর কাছে একটু ছেড়া | সেলস পারসনকে বললাম ভাই এটা ছেড়া আপনি আরেকটা দেখান | সে এই কথা শোনা মাত্র কিছুক্ষণ আমার মুখের দিকে তাকিয়ে থাকলো – তারপর বলল স্যার এটা ছেড়া না এটা ফ্যাশন, এটাকে বলে টর্ন জিন্স | আমি বললাম ওহ: আচ্ছা | মনে পরে গেল রবিন্দ্রনাথের সেই মহান উক্তি – ‘ফ্যাশন হলো মুখোশ আর স্টাইল হলো মুখশ্রী’|
উপরের কথা গুলা আসলে বলার উদ্দেশ্য হলো একজন ফ্যাশন মার্কেটারকে ফ্যাশন, স্টাইল, বর্তমান সময়ের ফ্যাশন ট্রেন্ড, টার্গেট অডিয়েন্স ইত্যাদি সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে | কারণ নরমাল মার্কেটিং এবং ফ্যাশন মার্কেটিংয়ের মধ্যে একটু পার্থক্য আছে যেমন ধরুন ২২ বছর বয়সের একজন সাধারণ মেয়ে এবং একই বয়সের একজন ছাত্রীর ফ্যাশন বা স্টাইল এক না | সুতরাং একজন ফ্যাশন মার্কেটারকে, সে যে পোশাকের জন্য মার্কেটিং করতে যাচ্ছে সেইটাকে মাথায় রেখে টার্গেট অডিয়েন্স সেট করতে হবে|

বাংলাদেশে সারা বছরে প্রায় আট হাজার কোটি টাকার মার্কেট ধরতে ছুটে চলেছে প্রায় সাড়ে পাচ হাজারের উপরে ফ্যাশন ও বুটিক হাউস গুলো সাথে আছে এক হাজারের উপরে ই-কমার্স সাইট ও ১০ হাজারের মত ফেইসবুক পেজ (ফেইসবুকের মাধ্যমে পণ্য বেচার পেজ). এখন প্রশ্ন হলো এত বড় ফ্যাশন মার্কেটের ভিড়ে কিভাবে নিজের ব্র্যান্ডকে একটু আলাদা করবেন, উত্তর একটাই – ফ্যাশন ডিজিটাল মার্কেটিং |

এবার আসা যাক – ফ্যাশন ডিজিটাল মার্কেটিং-এর মাধ্যমে কিভাবে আপনার ব্র্যান্ড প্রেজেন্সকে আরও শক্তিশালী এবং বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারবেন |

১. রিটার্গেটিং

সাধারণতঃ মানুষ একবার কোনো অ্যাড বা ওয়েবসাইট ভিজিট করেই পণ্য কেনার ডিসিশন নেয় না বা নিতে পারে না | কারণ অনলাইনে মানুষ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মুডে থাকে | এই ক্ষেত্রে সমাধান হলো আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটরদের কে রিটার্গেটিং করা | গুগল অ্যাডওয়ার্ডস এবং ফেইসবুক উভয়ই রিটার্গেটিংয়ের জন্য ব্যবহার করতে পারেন | রিটার্গেটিং হলো কোনো ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইট একবার ভিজিট করার পর সে অনলাইনে যেখানেই যাক আপনার অ্যাড দেখতে পাবে | এভাবে যদি সে প্রতিদিন ১০-১৫ বার আপনার ব্র্যান্ডের বিভিন্ন অ্যাড দেখে কোনো এক সময় সে প্রোডাক্ট কিনে ফেলবে আর যদি নাও কিনে অনন্ত আপনার ব্র্যান্ড সম্পর্কে জেনে গেল |

২. ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটিং

ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটিংকে বলা হয় ফিউচার মার্কেটিং কিন্তু এটা এখন আর ফিউচার না বর্তমানে এর সাকসেস রেট অনেক বেশি তাছাড়া এটা সামগ্রিক মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রেও গুরুত্ব বহন করে | ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটিং হলো একটা ব্র্যান্ডকে ইন্ডাস্ট্রির ‘কী পিপুল’ যাদের ইন্ডাস্ট্রিতে একটা ভ্যালু আছে তাদের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে পৌছে দেয়া | বাইরের দেশে অনেক ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটার পাওয়া যায় কিন্তু বাংলাদেশে এটা নেই বললেই চলে | সেক্ষেত্রে আপনার একটা স্ট্রাটেজি হতে পারে ফ্যাশন মডেলদের কে ব্যবহার করা | ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটিং-এ সাধারনত সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা হয় | তাই সেই সব মডেলদেরকেই ব্যবহার করা ভালো যাদের ফেইসবুক বা ইনস্টাগ্রামে অনেক ফলোযার আছে | এদেরকে ব্যবহার করতে পারেন এই ভাবে যে আপনি আপনার ব্রান্ডের ড্রেস পরিয়ে শুট করে তাদের পেজ থেকে শেয়ার করা অথবা তাদের পেজ থেকে আপনার ব্র্যান্ডকে রিভিউ বা এনডোর্স করা | এতে যেটা হয় নতুন অডিয়েন্স পাশাপাশি এক্জিস্তিং কাস্টমারদের কাছে আপনার ব্রান্ডের বিশ্বাস যোগ্যতা বাড়ে |

৩. ইমেইল বা এস.এম.এস রিমাইন্ডার

আপনার ওয়েবসাইটে এমন কিছু ভিজিটর আছে যারা কদাচিত অথবা নিয়মিত কেনাকাটা করে আপনার ওয়েবসাইট অথবা স্টোর থেকে| এই ক্ষেত্রে যেটা হয় অনেক সময় তারা ওয়েবসাইটের বিভিন্ন পেজে বিভিন্ন সময়ে ভিজিট করে এবং তাদের পছন্দসই পণ্য গুলো ‘ফেভারিট’ বা ‘অ্যাড টু কার্ট’ লিস্টে রেখে দেয় পরে কিনবে তাদের সুবিধামত সময়ে এই সব চিন্তা করে | একজন মানুষের কাছে আসলে অনেক ব্র্যান্ডই ভালো লাগতে পারে তো সেই কারণে সে সব ব্রান্ডের ওয়েবসাইট ভিজিট করে এবং তার পছন্দসয় পণ্য গুলা ‘ফেভারিট’ বা ‘অ্যাড টু কার্ট’-এ রেখে দিতে পারে | এই ক্ষেত্রে যেটা হয় সে অনেক সময় ভুলে যেতে পারে আপনার ব্র্যান্ডকে কারণ সে তার প্রিয় ব্র্যান্ড গুলোর সব ওয়েবসাইটেই এগুলা করে থাকে | সুতরাং তাদেরকে মানে যারা আপনার ওয়েবসাইটে ‘ফেভারিট’ বা ‘অ্যাড টু কার্ট’-এ পণ্য পছন্দ করে রেখেছে তাদেরকে টার্গেট করে ইমেইল বা এস.এম.এস রিমাইন্ডার দিতে পারেন | এতে আপনার বিক্রয় বৃদ্ধি পাবে |

৪. বার্থডে উইশিং

বার্থডে বা জন্মদিন সব সময়ই সবার কাছে একটা আবেগের বিষয় | আর একজন মার্কেটারকে সেটাই পুঁজি করে তার কাস্টমারকে নার্চার করতে হয় | বার্থডেতে আসলে একজনকে অনেক জায়গা থেকে উইশ করে – তার পরিবার থেকে, বন্ধুদের কাছ থেকে, প্রিয়জনের কাছ থেকে ইত্যাদি এবং সে এটা আশাও করে | এখন যদি আপনি আপনার কাস্টমারকে বার্থডেতে উইশ করেন, তখন তার কাছে এটা একটু আলাদা মনে হবে, আশ্চর্য হবে এবং ভাববে আপনি তাকে আলাদা কেয়ার করছেন বা ভ্যালু দিচ্ছেন কারণ এটা সে আশায় করে না | এভাবে আপনার ব্র্যান্ডের লয়ালটি পাশাপাশি বিক্রিও বাড়বে | এখন প্রশ্ন হলো এটা আপনি কিভাবে করবেন ? খুব সিম্পল | যারা আপনার শপ বা অনলাইনে এসে পণ্য কেনে তাদের কাছ থেকে তাদের নাম, মোবাইল নম্বর, ইমেল আইডি এবং জন্মদিন সংগ্রহ করে ডাটাবেসে রেখে দিন | এবার প্রতিদিন ঐ ডাটাবেসকে ব্যবহার করে তাদেরকেই ইমেল ও এস.এম.এস পাঠিয়ে উইশ করুন যাদের ঐদিনে জন্মদিন | এই ক্ষেত্রে আপনি তাদেরকে বিশেষ অফারও (যেমন ১০% ডিসকাউন্ট) দিতে পারেন | এতে আপনার বিক্রয় বৃদ্ধি পাবে |

৫. স্টাইল গাইড

স্টাইল গাইড হলো একটা ব্রান্ডের যে বিভিন্ন রকম পোশাক যেমন শার্ট, টি-শার্ট, ডেনিম, বটম, সালোয়ার-কামিজ, টিউনিক ইত্যাদি সংগ্রহ থাকে সে গুলোকে নিয়ে একটা বই বা গাইড তৈরী করা যেখানে গল্প আকারে বর্ণনা করা হয় কিভাবে পোশাক গুলা পরতে হয়, কোনটার সাথে কোনটা ম্যাচিং করে পরতে হবে, কখন এবং কোন সিজনে পরলে ভালো হবে, পোশাকের তৈরিতে কি কি উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে, কেন এই উপাদান গুলা ব্যবহার করা হয়েছে পাশাপাশি এটা কিভাবে একজন ব্যবহারকারীর দৈনন্দিন জীবনে প্রভাব ফেলবে ইত্যাদি |
এটা হতে পারে বিভিন্ন অকেশন বা সিজনকে টার্গেট করে যেমন স্প্রিং, সামার, উইন্টার, ফল, ওয়েডিং, পার্টি, ওয়ার্ক, ট্রাভেল, হলিডে ইত্যাদি | এটা আপনি আপনার ওয়েবসাইটে রেখে প্রমোশন করতে পারেন সোশ্যাল মিডিয়া, এস.এম.এস বা ইমেইল মার্কেটিং-এর মাধ্যমে অথবা লিফলেট আকারে বিলি করতে পারেন যেটা আপনার বিক্রয় বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে |

৬. নার্চারিং পিপল

যারা প্রথম আপনার স্টোর বা ওয়েবসাইটে আসে সাধারনত সব সময় তারা কোনো প্রোডাক্ট কিনতে প্রস্তুত থাকে না | ওই সমস্ত কাস্টমারের কাছ থেকে খুব কৌশলে নাম, মেইল আইডি বা ফোন নম্বর নিয়ে রাখতে পারেন | তারপর তাদেরকে টার্গেট করে এস.এম.এস বা ইমেইল মার্কেটিং করে তাদেরকে জানাতে পারেন আপনার নতুন নতুন কালেকশন, এক্সক্লুসিভ কালেকশন, সিজনাল কালেকশন ইত্যাদি এবং যখন আপনি এটা করবেন তখন সে এর মাধ্যমে আপনার ব্র্যান্ডকে রি-কল করতে পারবে এবং এক সময় সে কিছু কেনার জন্য আপনার স্টোরে আসবে এবং কিনবে |

৭. গিফট গাইড

১২ মাসে ১৩ পার্বনের দেশ বাংলাদেশ | তাই বছর জুড়েই আসলে কোনো না কোনো অনুষ্ঠান লেগেই থাকে বাংলালির জীবনে যেমন জন্মদিন, বিবাহ বার্ষিকী, ভেলেন্টাইন ডে, মাদারস ডে, ঈদ, পূজা ইত্যাদি এবং মানুষ বছর জুড়েই এই সব সামাজিক অনুষ্টানকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন গিফট কিনে থাকে তার প্রিয় মানুষদের জন্য | মানুষ সব সময় কাউকে কোনো কিছু গিফট করতে গিয়ে একটু দ্বিধাদন্দে ভোগে-কি দেব, কেমন জিনিস দিলে ভালো হবে, কোথায় পাব ইত্যাদি | আর সুজোগটাকেই ফ্যাশন মার্কেটাররা ব্যবহার করতে পারে যেমন তারা জন্মদিন, বিবাহ বার্ষিকী, ভেলেন্টাইন ডে, মাদারস ডে, ঈদ, পূজা ইত্যাদি বিষয় গুলা মাথায় রেখে গিফট গাইড তৈরী করতে পারে | গিফট গাইড হলো আসলে কিছু আইটেম-এর সমষ্টি যেটা আপনি আপনার স্টোর বা অনলাইনে বিক্রি করতে চান | এবং এই গিফট গাইড টা আপনি আপনার ওয়েবসাইটে রেখে প্রমোশন করতে পারেন সোশ্যাল মিডিয়া, এস.এম.এস বা ইমেইল মার্কেটিং-এর মাধ্যমে যেটা আপনার বিক্রয় বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে |

...See More
প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ওয়েব হাব এবং ডেলিভারী কোম্পানী ই-কুরিয়ার এর মাঝে ব্যাবসায়ীক সমঝোতা চুক্তি সম্পন্ন।

প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ওয়েব হাব এবং ডেলিভারী কোম্পানী ই-কুরিয়ার এর মাঝে ব্যাবসায়ীক সমঝোতা চুক্তি সম্পন্ন।

প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান “ওয়েব হাব” এর সাথে বাংলাদেশ অন্যতম সেরা ডেলিভারী কোম্পানী “ই-কুরিয়ার লিমিটেড” এর মাঝে ব্যাবসায়ীক সমঝোতা চুক্তি সাক্ষরিত হয়েছে। “ওয়েব হাব” মূলত ইকমার্স সল্যুশন,  ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট, সফটওয়ার ডেভেলপমেন্ট, ক্লাউড হোস্টিং, ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কাজ করে থাকে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্নজয়ন্তী উপলক্ষে ওয়েব হাব সারাদেশে ২০২১ সালের মাঝে ১০০০ ইকমার্স উদ্যোক্তা তৈরি করার লক্ষ্যে কাজ করছে। ইকমার্স উদ্যোক্তাদের অনেকগুলো সমস্যার মাঝে অন্যতম প্রধান সমস্যা হলো পার্সেল ডেলিভারী। পার্সেল ডেলিভারী সমস্যার সমাধান হিসেবে ডেলিভারী কোম্পানী “ই-কুরিয়ার লিমিটেড” এর সাথে সমঝোতা চুক্তি সম্পাদিত হলো।

 

ওয়েব হাব এর সকল ইকমার্স উদ্যোক্তাদের কে “ই-কুরিয়ার লিমিটেড” অগ্রাধিকার  ভিত্তিতে সাপোর্ট এবং সার্ভিস প্রদান করবে। উক্ত সমঝোতা চুক্তি অনুষ্ঠানে “ই-কুরিয়ার লিমিটেড” পক্ষে উপস্থিত ছিলেন “ই-কুরিয়ার লিমিটেড” এর সি.ই.ও বিপ্লব ঘোষ রাহুল, অপারেশন হেড বিজিত কুমার, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার অলক এবং “ওয়েব হাব” পক্ষে উপস্থিত ছিলেন “ওয়েব হাব” এর কো-ফাউন্ডার এবং সি.ই.ও মো রুবেল মাহমুদ এবং সি.এস.ও মোঃ রাশিদ আবিদ।

এই চুক্তির ব্যাপারে “ই-কুরিয়ার লিমিটেড” এর সি.ই.ও জনাব বিপ্লব ঘোষ রাহুল বলেন যে, এই চুক্তি সম্পাদিত হওয়ার আগে “ওয়েব হাব” এর টপ ম্যানেজমেন্ট এর সাথে আমার এবং আমার টিম লীডারদের অনেক বার আলোচনা হয়েছে। ইকমার্স ইন্ডাস্ট্রি তে নতুনদের নিয়ে “ওয়েব হাব” এর টিম ম্যানেজমেন্ট এর সকল প্রকার চিন্তা ভাবনাই আমাকে উক্ত চুক্তি সম্পাদনে আগ্রহী করে তুলেছে। ইকমার্স ইন্ডাস্ট্রি নিয়ে তাদের চিন্তা ভাবনার অংশীদার হতে পেরে টীম ই-কুরিয়ার খুবই খুশি।

 

“ওয়েব হাব” এর সি.ই.ও মোঃ রুবেল মাহমুদ বলেন যে, ২০১১ সাল থেকে ইকমার্স ইন্ডাস্ট্রি তে কাজ করছি এবং এই ইন্ডাস্ট্রিতে দীর্ঘ ১০ বছরের অভিজ্ঞতা থেকে আমি জানি যে অনলাইনে ব্যাবসা করতে হলে কি কি সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। সে অভিজ্ঞতা থেকেই “ওয়েব হাব” এর যাত্রা শুরু। ইকমার্স ইন্ডাস্ট্রি তে অনেক সমস্যার মাঝে অন্যতম প্রধান সমস্যা হলো নিশ্চিন্তে নিরাপদে প্রোডাক্ট ডেলিভারী। কুরিয়ার ইন্ডাস্ট্রী তে মার্কেট লিডার “ই-কুরিয়ার লিমিটেড” এর “ওয়েব হাব” এই সমঝোতা চুক্তিটি আমাদের সকল ক্লায়েন্টদের ডেলিভারী সমস্যার সমাধান। উক্ত চুক্তি সম্পাদনে “টীম ই-কুরিয়ার” কে ধন্যবাদ জানাই।

“ওয়েব হাব” এর সি.ই.ও মোঃ রুবেল মাহমুদ আরো বলেন যে, শুধু মুনাফা করতে নয় বরং সার্টিফাইড বেকারদের বেকারত্ব দুরীকরণে শুরু আমাদের এই উদ্যোগ। আপনার ইকমার্স ব্যাবসা পরিচালনা করতে যাবতীয় কিছুতে আমরা সাপোর্ট দিবো। একদম শুরু থেকে বললে আপনার কোম্পানীর লোগো ডিজাইন থেকে শুরু করে ট্রেড লাইসেন্স, ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট, ডিজিটাল মার্কেটিং সহ সব কিছুতে “টিম ওয়েব হাব” আপনার ছায়া সঙ্গী হয়ে সাপোর্ট দিবে। আপনি শুধু আমাদের কাছ থেকে সার্ভিস নেন, ব্যাবসা শুরু করুন এবং শুধু ব্যাবসাই করুন, অন্য সকল চিন্তা ভাবনা আমাদের উপর ছেড়ে দিন।

...See More